বাংলাদেশ থেকে যেভাবে নেমচিপ এর ডোমেইন ও হোস্টিং কিনবেন।

আপনি কি নেমচিপ থেকে ডোমেইন ও হোস্টিং কেনার কথা ভাবছেন? কেনার আগে নেমচিপ সম্পর্কে জেনে নিন। বিকাশ দিয়ে বাংলাদেশ থেকে যেভাবে নেমচিপ এর ডোমেইন ও হোস্টিং কিনবেন।

বাংলাদেশ থেকে যেভাবে নেমচিপ এর ডোমেইন ও হোস্টিং কিনবেন।

আপনি কি নেমচিপ (Namecheap) থেকে ডোমেইন এবং হোস্টিং কিনতে চান? কেনার আগে নেমচিপ সম্পর্কে জেনে নিন। তাহলে চলুন দেখে নিই, বাংলাদেশ থেকে যেভাবে নেমচিপ এর ডোমেইন ও হোস্টিং কিনবেন। চলুন প্রথমে আমরা নেমচিপ সম্পর্কে ভালভাবে যেনে নিই। আর বিকাশ দিয়ে বাংলাদেশ থেকে যেভাবে নেমচিপ এর ডোমেইন ও হোস্টিং কিনবেন।

নেমচিপঃ নেমচিপ হল, আইসি এ এন এন (ICANN) স্বীকৃত রেজিস্ট্রার কোম্পানি, যারা ডোমেইন রেজিস্ট্রেশন করে এবং বিভিন্ন কোম্পানি/ব্যক্তির কাছে বিক্রি করে। নেমচিপ প্রতিষ্ঠা হয় ২০০০ সালে এবং এটি অবস্থিত মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ফিনিক্স এরিজোনায়। নেমচিপ প্রতিষ্ঠা করেন – রিচার্ড কার্কেন্ডল। ২০০০-২০১৮ সালের ডোমেইন রেজিস্ট্রার এর জরিপে দেখা যায়, বিশ্বের সবচেয়ে বেশি ডোমেইন প্রভাইডার হিসেবে নেমচিপ নির্বাচিত হয়। বর্তমানে নেমচিপ প্রায় ১৪ মিলিয়ন/১ কোটি ৪০ লক্ষ ডোমেইন নিয়ন্ত্রন করছে। নেমচিপ ডোমেইন এর পাশাপাশি, ওয়েব হোস্টিং, এস এস এল সার্টিফিকেট, ভি পি এন পরিষেবাও দিচ্ছে।

নেমচিপ কেন এত জনপ্রিয়?

কারণঃ অন্যান্য হোস্টিং প্রোভাইডার এর থেকে, নেমচিপ অনেক কম মুল্যে ডোমেইন এবং হোস্টিং বিক্রি করে, এবং এদের সকল সার্ভিস অনেক ভাল মানের ও অন্যান্য কোম্পানির তুলনায় অনেক সেফ/সুরক্ষিত। নেমচিপ আপনার ডোমেইন এর তথ্য হুইসগার্ড এর মাধ্যমে প্রটেক্ট করে রাখে, যার কারণে কেউ চাইলেও আপনার তথ্য দেখতে পারবে না, এটা অনেক নিরাপদ ব্যবস্থা। নেমচিপের সকল সার্ভিস এর মুল্য অন্যদের তুলনায় অনেক কম হওয়ায়, নতুনরা সহজেই এর ডোমেইন হোস্টিং কিনতে পারে, এবং এদের হোস্টিং সার্ভার ও অনেক ভাল মানের। যার ফলে ওয়েব সাইট কখনো ডাউন হয়না এবং ওয়েবসাইট এর স্পিডপারফর্মেন্স অনেক ভালো। আমি নিজেও নেমচিপ এর হোস্টিং ব্যবহার করছি।

নেমচিপ এর জনপ্রিয়তার আরোও একটি কারণ হল, নেমচিপ সারা বছর তাদের প্রত্যেক টা সার্ভিস এ অনেক ডিস্কাউন্ট দিয়ে থাকে। নতুনদের কথা মাথায় রেখে নেমচিপ এই ডিস্কাউন্ট দিয়ে থাকে। যখন আমরা নতুন কেউ আমাদের বিজনেস বা ব্লগ ওয়েবসাইট করতে চাই, তখন তো আর আমাদের বেশি বাজেট থাকে না, তাই নেমচিপ এই সুবিধা টি সারাবছর চালু রেখেছে। এছাড়াও, মাঝে মাঝে যখন কোন বিশেষ দিন বা বিশেষ কোন উৎসব এর সময় হয়, তখন আরোও বেশি ডিস্কাউন্টে সার্ভিস গুলো দেয়। নিচে আমি নেমচিপের সকল ডিস্কাউন্টের লিংক দিয়ে দিচ্ছি, যাতে আপনারা কিছু টাকা বাঁচাতে পারেন। বিঃদ্রঃ লিংকগুলো বর্তমান অফারের সাথে সবসময় আপডেট রাখা হবে।

বর্তমানে বিশ্বের সাথে তাল মিলিয়ে নেমচিপ তাদের সার্ভিস গুলো অনেক আপডেট করছে, যার কারণে এদের জনপ্রিয়তা দিন দিন বেড়েই চলেছে। বাংলাদেশেও নেমচিপ এর অনেক সুনাম রয়েছে এবং চাহিদাও রয়েছে। কিন্তু বাংলাদেশে এর চাহিদা থাকা স্বত্বেও কিছু কারণে, নেমচিপ থেকে সবাই চাইলেও ডোমেইন এবং হোস্টিং কিনতে পারেনা। তাহলে চলুন জেনে নিই, কি কারণে যে কেই চাইলেও নেমচিপ থেকে ডোমেইন ও হোস্টিং কিনতে পারেনা। এবং, বাংলাদেশ থেকে যেভাবে নেমচিপ এর ডোমেইন ও হোস্টিং কিনবেন।

আমরা যারা নেমচিপ থেকে ডোমেইন এবং হোস্টিং কিনতে চাই, কিন্তু আমাদের ইন্টারন্যাশনাল মাস্টার কার্ড না থাকাই আমরা কিনতে পারিনা। নেমচিপ থেকে আপনি যদি কোন কিছু কিনতে যান, তাহলে আপনার ডলার এর প্রয়োজন। নেমচিপ এ আপনি শুধুমাত্র ডলার সাপোর্টেড, মাস্টার কার্ড, ভিসা কার্ড, পেপ্যাল এবং বিটকয়েন এর মাধ্যমে ডোমেইন ও হোস্টিং কিনতে পারবেন। যেটি আমাদের সবচেয়ে বড় সমস্যা। ভাই, সমস্যা থাকলে সমস্যার সমাধান ও রয়েছে। তাহলে চলুন দেখে নিই কি কি উপায়ে বাংলাদেশ থেকে যেভাবে নেমচিপ এর ডোমেইন ও হোস্টিং কিনবেন।

বাংলাদেশেও নেমচিপ এতটা জনপ্রিয় যে জরিপে বিশ্বের সেরা ৫টি দেশের মধ্যেও বাংলাদেশ রয়েছে। নিচের ছবিতে দেখুন নেমচিপের জনপ্রিয়তার একটি রিপোর্ট।

বাংলাদেশ থেকে যেভাবে নেমচিপ এর ডোমেইন ও হোস্টিং কিনবেন।

বর্তমানে বাংলাদেশে বিভিন্ন ব্যাংক ডুয়েল কারেন্সি/ইন্টারন্যাশনাল ডলার সাপোর্টেড মাস্টার কার্ড ও ভিসা কার্ড প্রদান করছে খুব স্বল্প মুল্যে মাত্র ৫৭৫ টাকায়। ব্যাংক গুলোর মধ্যে অন্যতম হলোঃ ইস্টার্ন ব্যাংক লিমিটেড এবং ব্যাংক এশিয়া। তবে আপনি যদি ডলার ব্যবহার করতে চান বা ডুয়েল কারেন্সি কার্ড নিতে চান তাহলে আপনার পাসপোর্ট থাকতে হবে। কারন, বৈদেশিক মুদ্রা ব্যবহার এর জন্য আপনাকে ডলার এন্ডর্সমেন্ট করতে হবে। তাহলেই আপনি বাংলাদেশ এর ব্যাংক এর কার্ড দিয়েই ডলার দিয়ে কেনাকাটা করতে পারবেন এবং বিভিন্ন দেশে ভ্রমন করতে গেলেও এই কার্ড এর ডলার ব্যবহার করতে পারবেন।

এছারাও, আপনার যদি পেওনিয়ার এর মাস্টার কার্ড থাকে তাহলে সেটি দিয়েও আপনি নেমচিপ থেকে ডোমেইন এবং হোস্টিং কিনতে পারবেন। কিন্তু অনেকেরই পেওনিয়ার মাস্টার কার্ড থাকেনা, শুধুমাত্র যারা ফ্রিল্যান্সার তাদেরই এই কার্ড থাকে। আপনার যদি পেপ্যাল ও বিটকয়েন অ্যাকাউন্ট থাকে তাহলে সেটি দিয়েও আপনি নেমচিপ থেকে ডোমেইন হোস্টিং কিনতে পারবেন। কিন্তু, বড় সমস্যা হলোঃ বাংলাদেশে পেপ্যাল ও নাই। সবচেয়ে বড় কথা হল, আমরা যারা বিগেইনার বা কেবল শুরু করতে চাচ্ছি, তাদের শুরুর দিকে এগুলো কিছুই থাকেনা।

আমি নিজেও যখন শুরু করেছিলাম, তখন আমারও কিছু ছিলনা। তাই বলে তো আমি বসে নেই। আমি যখন শুরু করেছিলাম, তখন ইউটিউবে ভিডিও দেখে আমি বাংলাদেশি এক বড় কোম্পানির কাছ থেকে ডোমেইন ও হোস্টিং কিনেছিলাম। কিন্তু, কষ্টের কথা কি জানেন, তারা অনেক বেশি টাকা নিয়েছিল ঠিক, কিন্তু যে হোস্টিং সার্ভিস টা দিয়েছিলো সেটা একদম বাজে, প্রায় বেশির ভাগ সময় সাইট ডাউন থাকত এবং অনেক স্লো সার্ভার। এবং আমি যখন আমার ডোমেইন টি ট্রান্সফার করতে যাই, তখন আমাকে আর ডোমেইন টি ট্রান্সফার করতে দিচ্ছেনা, পরে ওনাদের সাথে অনেক কথা বলে, আমার ডোমেইন টি উদ্ধার করেছি।

আমার অভিজ্ঞতা থেকে আমি আপনাদের পরামর্শ দিবো, বিভিন্ন ওয়েব সাইটের আকর্ষনীয় সস্তা বিজ্ঞাপন দেখে ও ইউটিউবের স্পন্সরশীপ ভিডিও দেখে, বাংলাদেশি ডোমেইন ও হোস্টিং প্রভাইডার এর কাছ থেকে, কখনই ডোমেইন ও হোস্টিং কিনবেন না। আর যদি কিনেন তাহলে আমি নিশ্চিত আপনি পস্তাবেন এবং আপনার সাইট কখনই গুগল সার্চে র‍্যাঙ্ক করবেনা। কারন, গুগলের আপডেট এলগরিদম হিসেবে এস ই ও এর পাশাপাশি ওয়েবসাইট এর স্পিড এর উপর র‍্যাংকিং নির্ভর করে। আশা করি বুঝতে পেরেছেন। মনে রাখবেন, একটি ওয়েবসাইট এর উপর নির্ভর করছে আপনার সময় এর মুল্য। আপনি এখন আপনার ওয়েবসাইট এ যত পরিশ্রম ও সময় ব্যয় করবেন, সেটা যেন কখনই বৃথা না যায়।

বাংলাদেশ সহ অনেক দেশেই কিন্তু, অনেকের ডলার এর সমস্যা রয়েছে। বিশেষ করে নতুনদের কাছে কোন ডলার এর ব্যবস্থা থাকেনা। এই দিক চিন্তা করে, নেমচিপ অনেক ভাল একটি ব্যবস্থা করে রেখেছে, সেটা হল ডলার টপ-আপডলার টপ-আপ এর মাধ্যমে নতুন নেমচিপ অ্যাকাউন্ট এ অন্য কারো মাস্টার কার্ড/পেপ্যাল এর মাধ্যমে ডলার ডিপোজিট করা যায়। আপনি চাইলে অন্য কারো কাছ থেকে ডলার কিনেও, নেমচিপ থেকে ডোমেইন হোস্টিং কিনতে পারবেন।

নতুনদের কথা চিন্তা করে, আমি নিজেই ডলার টপ-আপ এর ব্যবস্থা করে রেখেছি। আপনি চাইলে আমার কাছ থেকেও, আপনার নেমচিপ অ্যাকাউন্ট এ ডলার টপ-আপ করে নিতে পারেন। আমি আমার মাস্টার কার্ড ও পেপ্যাল এর মাধ্যমে আপনার অ্যাকাউন্টে ডলার লোড করে দিবো। এর জন্য আমাকে আলাদা কোন ফি/চার্জ দিতে হবেনা, শুধুমাত্র আপনি যে পরিমান ডলার নিবেন সেটার টাকা আমাকে বিকাশ করে দিবেন। আমি বিশ্বস্থতার সাথে অনেক দিন থেকেই অনেক ভাইকে ডলার দিয়েছি।

বাংলাদেশের অনেক মানুষ চাই ইন্টারন্যাশনাল ভাল মানের কোনো ডোমেইন ও হোস্টিং প্রোভাইডার এর কাছ থেকে, ডোমেইন ও হোস্টিং কিনতে। কিন্তু, অনেক কারণে সেটা আর সম্ভব হয়ে ওঠে না। যার কারণে লোকাল কোম্পানি গুলোর কাছ থেকে ডোমেইন ও হোস্টিং কিনতে হয়। কিন্তু, আপনি কি জানেন যেকোনো সময় আপনার স্বপ্নের ডোমেইন টি অন্য কারো হয়ে যেতে পারে, এবং আপনার ওয়েবসাইটের সকল কন্টেন্ট হারিয়ে যেতে পারে। কখনো কি আপনি এটা ভেবে দেখেছেন???

বাংলাদেশ থেকে আকর্ষনীয় সস্তা বিজ্ঞাপন দেখে ও ইউটিউবের স্পন্সরশীপ ভিডিও দেখে, বাংলাদেশি ডোমেইন ও হোস্টিং প্রভাইডার এর কাছ থেকে কিনলে আপনার অবস্থাও এই ভাইয়ের মত হতে পারে, তাই এখনি সতর্ক হন। 🙁

আপনার যদি ইন্টারন্যাশনাল মাস্টার কার্ড থাকে বা ডলার থাকে তাহলে, কিভাবে নেমচিপ থেকে ডোমেইন ও হোস্টিং কিনবেন, দয়া করে পরের পোস্ট টি দেখুন। অথবা নিচের ভিডিও টি দেখুন। এতক্ষন ধরে পোস্ট টি পড়ার জন্য আপনাকে অসংখ্য ধন্যবাদ। আপনার সুস্থতা কামনা করে আজকের মত এখানেই শেষ করছি।

নেমচিপ এ টপ-আপ (ডলার) লাগলে আমার সাথে যোগাযোগ করুন।

মোবাইলঃ 01770787243 ফেসবুকঃ https://facebook.com/rjrakeshict

Rakesh Khan

আমি একজন প্রফেশনাল ব্লগার, ইউটিউবার,ওয়ার্ডপ্রেস ওয়েব ডিজাইনার এন্ড ডেভেলপার, ডিজিটাল মার্কেটার, অ্যাফিলিয়েট মার্কেটার, ফ্রিল্যান্সার এবং একজন উদ্যোক্তা।

Leave a Reply